বিএনপি নেতা আবদুল্লাহর বিরুদ্ধে ‘মিথ্যা’ পোষ্ট, কে এই সাফাত ফারদিন?

বিএনপি নেতা আবদুল্লাহর বিরুদ্ধে ‘মিথ্যা’ পোষ্ট, কে এই সাফাত ফারদিন?

নিজস্ব প্রতিবেদক, কক্সবাজার
বিসিবিনিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম

কক্সবাজার জেলা বিএনপির কোষাধ্যক্ষ ও আগামীদিনের কক্সবাজার-০৪ (উখিয়া-টেকনাফ) আসনে সংসদ সদস্য প্রার্থী মোহাম্মদ আবদুল্লাহর নেতৃত্বে ঈর্ষান্বিত হয়ে তাঁর বিরুদ্ধে চক্রান্ত করছে একটি চক্র। তারই অংশ হিসেবে শহীদ দিবস ও মাতৃভাষা দিবসে টেকনাফে বিএনপির কর্মসূচি মিথ্যা ও বানোয়াট প্রোপাগান্ডা ছড়ানো হচ্ছে। সাফাত ফারদিন নামের একটি ফেসবুক আইডি থেকে টেকনাফ শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে ফেরার পথে বিএনপি নেতা-কর্মীদের উপর ‘চোরাগোপ্তা’ হামলা করা হয়েছে স্ট্যাটাস দেয়া হয়েছে। যদিও টেকনাফে এ ধরণের কোন ঘটনাই ঘটেনি।

টেকনাফ বিএনপির একাধিক সুত্র জানিয়েছেন, ২০২২ সালের মহান একুশে ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে টেকনাফ উপজেলা বিএনপি স্বতস্ফুর্ত ভাবে ভাষা সৈনিকদের শ্রদ্ধা জানিয়ে পুষ্পার্ঘ দিয়েছে। সেই কর্মসূচি শান্তিপূর্ণ ভাবে শেষ হয়েছে। সেখানে কোন ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

অথচ, সাফাত ফারদিন নামের এক যুবক বিএনপি নেতা মোহাম্মদ আবদুল্লাহর বিরুদ্ধে মিথ্যা প্রোপাগান্ডা ছড়াতে মিথ্যা স্ট্যাটাস দিয়ে তাঁকে হেয় করার চেষ্টা করেছেন।

বিএনপি নেতা আবদুল্লাহর বিরুদ্ধে ‘মিথ্যা’ পোষ্ট, কে এই সাফাত ফারদিন?

ওই যুবক তার স্ট্যাটাসে লিখেছেন, “টেকনাফ কেন্দ্রীয় শহীদমিনারে টেকনাফ উপজেলা বিএনপি ও এর অঙ্গসংঠনের মিছিলে বিতর্কিত গডফাদার আব্দুল্লাহর নেতৃত্বে চোরাগুপ্তা হামলা-

গতকাল ২১শে ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে মিছিল শেষে উপজেলা বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠন শহীদ বেদীতে ফুল দিয়ে ফিরে আসার সময় টেকনাফের বিএনপির নেতা আব্দুল্লাহ, তার ছোট ভাই আত্মসমর্পণকৃত ইয়াবা ব্যবসায়ী জিয়াউর রহমান এবং তাদের অনুসারী একদল মাদকাসক্ত উশৃঙ্খল যুবক চোরাগুপ্তা হামলা করে। এই হামলায় টেকনাফ উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক এইচ এম উসমান গণি, হ্নীলা দক্ষিণ বিএনপির সভাপতি নুরুল আমিন চৌধুরী, হ্নীলা উত্তর যুবদলের সভাপতি মোহাম্মদ হারুনসহ আরও অনেকে আহত হয়। যে সময় আমরা দলকে শক্ত করে একটি শক্তিশালী আন্দোলনের জন্য প্রস্তুুতি নিচ্ছি সে সময় দলের ভেতর ঘাঁপটি মেরে গ্রুপিং সৃষ্টিকারী এসব সরকারী দলের এজেন্টদের আমার ভাইদের উপর হামলার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি এবং অবিলম্বে এদের দল থেকে বহিষ্কারের দাবি জানাচ্ছি।”

বিএনপি নেতা আবদুল্লাহর বিরুদ্ধে ‘মিথ্যা’ পোষ্ট, কে এই সাফাত ফারদিন?

টেকনাফের বিএনপি নেতা মোহাম্মদ আবদুল্লাহ

অথচ, টেকনাফ বিএনপির একাধিক নেতার সাথে যোগাযোগ করে জানা গেছে, এই ধরণের কোন ঘটনাই টেকনাফে ঘটেনি। মূলতঃ সাফাত ফারদিন নামের ওই যুবক সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মিথ্যা, ভিত্তিহীন প্রোপাগান্ডা ছড়াচ্ছেন।

টেকনাফের বিএনপি নেতা-কর্মীদের দাবি, মোহাম্মদ আবদুল্লাহর নেতৃত্বে টেকনাফে বিএনপি সংগঠিত। আগামি নির্বাচনে তিনি কক্সবাজার-৪ (উখিয়া-টেকনাফ) আসনে সংসদ সদস্য পদে প্রতিদ্বন্ধিতা করার সম্ভাবনা রয়েছে। সেই কারণেই রাজনৈতিক ভাবে ঈর্ষান্বিত হয়ে মোহাম্মদ আবদুল্লাহর জনপ্রিয়তায় ভীত বিএনপিরই একটি চক্র তার বিরুদ্ধে উঠেপড়ে লেগেছে।

বিএনপি নেতারা মনে করেন, বিএনপির কেন্দ্রীয় ও জেলা কমিটি ঘোষিত সব কর্মসূচিই টেকনাফে মোহাম্মদ আবদুল্লাহর নেতৃত্বে হয়। সেই ধারাবাহিকতায় সোমবার একুশে ফেব্রুয়ারি মহান ভাষা দিবসের কর্মসূচিও যথাযথ ভাবে পালিত হয়েছে। সেখানে অপ্রীতিকর কোন ঘটনা ঘটেনি।

তাদের মতে, সাফাত ফারদিন তার আইডি থেকে মোহাম্মদ আব্দুল্লাহর ব্যক্তিগত চরিত্র হনন করে মিথ্যা ও নোংরা পোস্ট করেছে। এটা বিএনপিকে স্থানীয় ভাবে নেতৃত্বশূন্য করার একটি গভীর ষড়যন্ত্রের অংশ।

তারা এই ধরণের প্রোপাগান্ডার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, শাহজাহান চৌধুরী আমাদের বিএনপি জেলা সভাপতি। মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ জেলা বিএনপির কোষাধ্যক্ষ। তাদের মধ্যে পরস্পর আস্থা, বিশ্বাস, শ্রদ্ধা ও স্নেহের সম্পর্ক বিদ্যমান আছে এবং থাকবে। আওয়ামী লীগের কোন এজেন্ট বিএনপি সেজে সেই সুসম্পর্ক নষ্ট করতে পারবে না।

বিএনপি নেতা আবদুল্লাহর বিরুদ্ধে ‘মিথ্যা’ পোষ্ট, কে এই সাফাত ফারদিন?

মোহাম্মদ আবদুল্লাহর বিরুদ্ধে ফেসবুক পোষ্টকারি সাফাত ফারদিন।

কে এই সাফাত ফারদিন
সাফাত ফারদিন হলেন একসময়ের দুর্ধর্ষ শিবির ক্যাডার সরওয়ার জাহান চৌধুরীর ছেলে। সরওয়ার জাহান চৌধুরী বিএনপির জেলা সভাপতির ভাই হিসেবে উখিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। পরে তিনি এই পদ থেকে বহিস্কৃত হন।

সাফাত ফারদিনের চাচা মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত জামায়াতে ইসলামির নেতা শাহজালাল চৌধুরী। তিনি দীর্ঘদিন পলাতক ছিলেন। সম্প্রতি আওয়ামী লীগের সাথে আঁতাত করে তিনি এলাকায় ফিরেছেন। এলাকায় ফিরেই টেকনাফের ইয়াবা সম্রাট জাফর আলম ওরফে জাফর চেয়ারম্যানের মেয়ের সাথে নিজের ছেলে বিয়ে দিয়েছেন।

কক্সবাজার-৪ (উখিয়া-টেকনাফ) আসনে দীর্ঘদিন সংসদ সদস্য ছিলেন শাহজাহান চৌধুরী। আগামি নির্বাচনেও তিনি বিএনপির মনোনয়ন নিয়ে প্রতিদ্বন্ধিতা করার সম্ভাবনা রয়েছে। কোন কারণে তিনি ব্যর্থ হলে সেই পদের জন্য চেষ্টায় আছেন ফেসবুকে ‘মিথ্যা’ ও ‘বানোয়াট’ পোষ্টকারি সাফাত ফারদিনের বাবা সরওয়ার জাহান চৌধুরী।

টেকনাফের বিএনপি নেতারা মনে করেন, এই কারণেই জনপ্রিয় বিএনপি নেতা মোহাম্মদ আবদুল্লাহকে বিতর্কিত ও তার চরিত্রহননের জন্য সরওয়ার জাহান চৌধুরীর ছেলে সাফাত ফারদিন প্রোপাগান্ডা ছড়ানোর পথ বেছে নিয়েছেন।

তারা মনে করেন, আওয়ামী লীগ পরিবারের সম্পর্ক সৃষ্টি করে এখন তারা বিএনপিকে গণবিচ্ছিন্ন করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

এই পোর্টালে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।