কুপ্রস্তাবে রাজি হয়নি মা, তাই মেয়েকে ‘ডেকে নিয়ে’ হত্যা

কুপ্রস্তাবে রাজি হয়নি মা, তাই মেয়েকে ‘ডেকে নিয়ে’ হত্যা

সারাদেশ ডেস্ক
বিসিবিনিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম

কিশোরগঞ্জের ভৈরব উপজেলায় ভাড়াটিয়া কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় তার চার বছর বয়সি শিশুসন্তানকে ডেকে নিয়ে শ্বাসরোধে হত্যার অভিযোগ উঠেছে বাড়িওয়ালার বিরুদ্ধে।

বুধবার সকালে শিশুর লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যার জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এ ঘটনায় সোহেল মিয়া নামের ওই ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ।

সোহেল পৌর শহরের পলতাকান্দা গ্রামের মৃত মজিদ মিয়ার ছেলে। নিহত শিশুটির নাম নদী।

নিহত শিশুর বাবা জাকির হোসেন জানান, প্রায় ছয় মাস আগে তারা পৌর শহরের পলতাকান্দা গ্রামে সোহেল মিয়ার বাড়িতে ঘরভাড়া নিয়ে বসবাস শুরু করেন। নিহত নদী তাদের একমাত্র কন্যাসন্তান। কয়েকদিন ধরে বাড়িওয়ালা সোহেল নদীর মাকে কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিল। এতে রাজি না হওয়ায় তিনি তার মেয়েকে প্রায়ই উত্ত্যক্ত করতেন ও হত্যার হুমকি দিতেন।

তিনি জানান, মঙ্গলবার রাতে সোহেল আবারও কুপ্রস্তাব দেন। এতে তিনি ব্যর্থ হয়ে রাতেই নদীকে মুড়ি খাওয়ানোর লোভ দেখিয়ে তুলে নিয়ে যান। নদীর মা তার পিছু পিছু গিয়েও মেয়েকে খুঁজে পাননি। পরে এলাকার মসজিদের মাইকে বিষয়টির ঘোষণা দেয়া হয় এবং আত্মীয়-স্বজনদের খবর দেন ওই নারী। তবে অনেক খোঁজাখুঁজি করেও নদীর সন্ধান পাওয়া যায়নি।

নদীর বাবা জানান, রাতে বিষয়টি পুলিশকে জানানো হয়। পরে পুলিশ এসে পলতাকান্দা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পূর্ব পাশে ময়লা-আবর্জনা ও কচুরিপানার ঝোঁপ থেকে শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করে।

এ বিষয়ে ভৈরব থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. গোলাম মোস্তফা বলেন, ধারণা করা হচ্ছে গলায় গামছা বা কাপড় পেঁচিয়ে শ্বাসরোধে শিশুটিকে হত্যা করা হয়েছে। তবে ময়নাতদন্তের পরই জানা যাবে কীভাবে হত্যা করা হয়েছে।

এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে বাড়ির মালিক সোহেলকে আটক করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

এই পোর্টালে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।




এই পাতার আরও সংবাদ