আল-আকসা মসজিদে আবারও সংঘর্ষ

আল-আকসা মসজিদে আবারও সংঘর্ষ

বিশ্ব ডেস্ক
বিসিবিনিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম

জেরুসালেমের পুরনো শহর এলাকায় শুক্রবার জুমার নামাজের পর আল-আকসা মসজিদ চত্বরে ফিলিস্তিনি বিক্ষোভকারী ও ইসরায়েলি পুলিশের মধ্যে আবার সংঘর্ষ হয়েছে।

ইসরায়েলি পুলিশ বাহিনী এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, নামাজ শেষ হওয়ার পরপরই ‘দাঙ্গা’ হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, কাছের এক ফটকের কাছে পুলিশ কর্মকর্তাদের লক্ষ্য করে কয়েকশ তরুণ পাথর ও মলোটভ ককটেল ছুঁড়তে শুরু করে। এ সময় জেরুসালেমের পুলিশ কমান্ডার ‘দাঙ্গাকারীদের ঠেকাতে’ পুলিশ কর্মকর্তাদের ভেতরে ঢোকার নির্দেশ দেন বলে বিবৃতিতে জানানো হয়। খবর বিবিসির।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে, দাঙ্গাকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ কর্মকর্তারা স্টান গ্রেনেড ও কাঁদানে গ্যাস ছুঁড়েছে।

এর আগে এগারো দিনের লড়াইয়ের পর বৃহস্পতিবার ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনের হামাস যুদ্ধবিরতিতে পৌঁছায়। দু’পক্ষের যুদ্ধে প্রাণ হারিয়েছে প্রায় ২৫০ জন, যাদের বেশিরভাগই মারা গেছে গাজায় ইসরায়েলের বিমান হামলায়।

ইসরায়েল ও হামাস দু পক্ষই দাবি করছে, এই লড়াইয়ে তাদের বিজয় হয়েছে।

ইসরায়েল প্রতিরক্ষা বাহিনী আইডিএফ বলছে, গাজায় ১১ দিনের লড়াইয়ে তারা ফিলিস্তিনি গোষ্ঠী হামাস ও ইসলামিক জিহাদের ২৫ জন ঊর্ধ্বতন কমান্ডার ও ২০০ এর মতো সক্রিয় সদস্যকে হত্যা করেছে।

তবে ফিলিস্তিনি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, গাজায় ২৪৩ জন মারা গেছে, যার মধ্যে ৬৬ জন শিশু ও ৩৯ জন নারী। হামাস তাদের যোদ্ধাদের হতাহতের কোনো পরিসংখ্যান দেয়নি।

ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বিনিয়ামিন নেতানিয়াহু তাদের সামরিক অভিযান ‘অভূতপূর্ব সফল’ দাবি করে বলেছেন, তারা বিমান হামলা চালিয়ে হামাসের ১০০ কিলোমিটার বিস্তৃত সুড়ঙ্গ নেটওয়ার্ক বিধ্বস্ত করে দিয়েছে এবং ইসরায়েলের শহর লক্ষ্য করে হামাসের রকেট নিক্ষেপের ক্ষমতাও নষ্ট করে দিয়েছে।

আইডিএফ দাবি করেছে, হামাসের সামরিক শাখা যেসব বহুতল ভবন থেকে তাদের কর্মকাণ্ড চালাত এরকম নয়টি ভবন, গাজায় হামাসের ১০টি সরকারি দপ্তর, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ১১টি শাখা অফিস এবং ৫টি ব্যাংকে তারা বোমাবর্ষণ করেছে। তাদের আয়রন ডোম প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা হামাসের ছোঁড়া ৯০% রকেট ভূপাতিত করে বিধ্বস্ত করেছে।

বিবিসির মধ্যপ্রাচ্য সম্পাদক জেরেমি বোওয়েন বলছেন, হামাসের একজন শীর্ষ নেতা গাজায় বিবিসিকে বলেছেন যে, ইসরায়েল ‘শেখ জারা ও আল-আকসা মসজিদ থেকে সরে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে’। মুসলিমদের জন্য অন্যতম সবেচেয়ে পবিত্র একটি মসজিদ হলো আল-আকসা।

জেরুসালেমের এই শেখ জারা এলাকায় ফিলিস্তিনি কয়েকটি পরিবারকে তাদের বাড়ি থেকে উৎখাত করাকে কেন্দ্র করে এবারের সংঘাতের সূত্রপাত হয়েছিল।

তবে এরকম কোনো প্রতিশ্রুতি বা সমঝোতার কথা ইসরায়েল অস্বীকার করেছে। তারা বলেছে, তাদের যুদ্ধবিরতি কোনো শর্তসাপেক্ষে হয়নি।

হামাসের একজন কর্মকর্তা সংবাদ সংস্থা অ্যাসোসিয়েটেড প্রেসকে (এপি) বলেছেন, ইসরায়েলের যুদ্ধবিরতির ঘোষণা ফিলিস্তিনি জনগণের জন্য একটা ‘বিজয়’।

এই পোর্টালে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।